Home অপরাধ প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা আনতে গিয়ে হাতের আঙুল খোয়ালেন নারী।।

প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা আনতে গিয়ে হাতের আঙুল খোয়ালেন নারী।।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি।। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলায় অসহায় ও হত-দরিদ্রদের জন্য দেয়া  প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা ৪৫০ টাকা আনতে গিয়ে রিনা বেগম (৩৫) নামের এক অসহায় নারীর হাতের আঙুল খোয়াতে হয়েছে।

হরষপুর ইউনিয়ন পরিষদ কক্ষের দরজার ফাঁকে রিনা বেগমের হাত আটকে গেলে চৌকিদার দরজা বন্ধ করে দেন। দরজার চিপায় পড়ে রিনা বেগমের ডান হাতের একটি আঙুল কেটে নিচে পড়ে যায়।

বৃহস্পতিবার রাতে রিনা বেগমকে আহত অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা শহরের কুমারশীলমোড় আলিফ জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিজয়নগর উপজেলার হরষপুর ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনা ঘটে। রিনা বেগম একই ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

রিনার ছোট ভাবী মরজিনা জানান, গত ছয় থেকে সাত মাস আগে রিনার সঙ্গে তার স্বামী ফজল মিয়ার ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এরপর থেকে রিনা তার একমাত্র মেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়িতে বসবাস শুরু করে। রিনার বাবা মারা যাওয়ার পর তার ভাই জসিম মিয়া সংসারের হাল ধরেন। রিনা ও ভাগণীর ভরণপোষণও তার ভাই জসিম দিতেন।

তিনি আরও বলেন, অসহায় ও হত-দরিদ্রদের দেয়া প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তার ৪৫০ টাকা আনতে বৃহস্পতিবার দুপুরে হরষপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে যান রিনা বেগম। টাকা নিতে লাইনে দাঁড়ালে রিনাকে পেছন থেকে কয়েকজন ধাক্কা দিলে রিনা ইউনিয়ন পরিষদের দরজায় গিয়ে ধাক্কা লাগে। এ সময় তার ডান হাত দরজার ফাঁকে আটকে যায়। তখন দরজায় থাকা চৌকিদার মনে করেন রিনা জোর করে ভেতরে ঢুকে পড়ছেন। এ সময় চৌকিদার রিনার হাত আটকে থাকা অবস্থাতেই দরজা বন্ধ করে দেন। এতে রিনার হাতের একটি আঙুল পুরোপুরি কেটে নিচে পড়ে যায় এবং আরেকটি আংশিক কাঁটা পড়ে। ঘটনার পর ওই চৌকিদারের নাম জানা হয়নি।

আহত রিনা বলেন, আমি চৌকিদারকে অনেক মিনতি করে বলেছি- ভাই আমার হাত আটকে গেছে, দরজাটা খোলেন। কিন্তু তিনি আমার কোন কথা শোনেননি। পরে চৌকিদার আমার কাঁটা আঙুল ঢিল মেরে ছুড়ে ফেলে দেন ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হরষপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সারওয়ার রহমান বলেন, টাকা বিতরণের সময় আমি ছিলাম না। শুনেছি কার আগে কে টাকা নেবে, সেটা নিয়ে ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়। তখন চৌকিদার দরজা লাগাতে গেলে এ ঘটনা ঘটে। দরজায় যে ওই নারীর হাত আটকে ছিল, সেটি চৌকিদার দেখেননি। ওই মহিলাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু এহা একটি অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা তাই, ওই নারীর যাবতীয় চিকিৎসার খরচ ইউনিয়ন পরিষদ বহন করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here