শুক্রবার, ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ,৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
Mujib

/

এর সর্বশেষ সংবাদ

প্রশাসন বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন কী?

প্রেমের টানে বাংলাদেশে আসা ভারতীয় তরুণীকে জিম্মি করে মুক্তিপণের দাবী

কসবা (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: প্রেমের টানে দেশ ছেড়ে প্রেমিকের হাত ধরে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন রোকসানা নামে ভারতীয় এক তরুণী।

গত রবিবার (৬ নভেম্বর) সময় আনুমানিক ১১ ঘটিকায় এই ঘটনাটি ঘটে। জানা যায়, ভারতের ত্রিপুরা সিপাহিজলা জেলার রহিমপুর উত্তর পাড়া কাটামুড়া সীমান্ত হয়ে সালদানদী সীমান্ত এলাকা দিয়ে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন তরুণী রোকসানা কে প্রেমিক হৃদয় তার ২জন সহযোগী।

ওই ভারতীয় তরুণী কে ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের গঙ্গানগর গ্রামের রুবেল মিয়া ছেলে হৃদয় মিয়া (২২) তরুণীকে সঙ্গে করে নিয়ে আত্মাগোপন হয়ে আছেন। তারা এখনো পর্যন্ত কোথায় আছেন কোনো খোঁজ খবর মেলেনি । এই বিষয়ে বের হয়ে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য।

স্থানীয়দের সুত্রে জানা যায়- ভারতীয় তরুণী ত্রিপুরা সিপাহিজলা জেলার রহিমপুর উত্তর পাড়া কাটামুড়া ফরুক মিয়া মেয়ে রোকসানা আক্তার (১৪) রহিমপুর স্কুলের ৭ম শ্রেনী ছাত্রী। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত কাটাতরের বাহিরে তাদের বাড়ি ঘর থাকায় দুই দেশের লোকজন প্রতিনিয়ত আসা যাওয়া করে। সেই সুবাদে বাংলাদেশ যুবক হৃদয় ভারতীয় তরুণীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। প্রেমিকের হাত ধরে গত ৬ নভেম্বর রহস্যজনক ভাবে উধাও হয়ে যায় ভারতীয় তরুণী রোকসানা। এই ঘটনা কে কেন্দ্র রহস্য ধ্রুমজাল ঘনীভূত হচ্ছে। সামাজিক ভাবেও বিষয়টি কয়েকবার সমাধানের চেষ্টায় স্থানীয় ব্যাক্তিবর্গ ব্যার্থ হোন বলে জানা গেছে । হৃদয় তার পরিবারের কাছে একাধিকবার জানান ভারতীয় তরুণী নিয়ে নিজ বাড়ী আসবে কিন্তু মেয়ে কে নিয়ে না আসায় পরিবার লোকজন গুলো চিন্তাত রয়েছেন।

এই বিষয়ে ভারতীয় তরুণী বাবা ফারুক মিয়া সাংবাদিকদের জানান- আমার মেয়ে রোকসানা কে প্রেমের ফাঁদে ফেলে কৌশল করে আমার নিজ বাড়ী রহিমপুর উত্তর পাড়া কাঠামুড়া নামক স্থানে সীমান্তবর্তী দোকানে আমার ছোট ছেলেকে নিয়ে যাওয়ার পথের মধ্যে সালদানদী গঙ্গানগরে হৃদয় সহ কয়েকজন যুবক আমার মেয়ে নিয়ে বাংলাদেশ চলে যায়। আমার ছোট ছেলে বাড়িতে এসে বলার পর আমরা জানতে পারি। তারপর থেকে আমি খোজ খবর নিয়ে হৃদয় পরিবারকে বিষয়টি জানাই। আমার মেয়েকে ফিরে দিবে বলে আমাকে ৭ দিন ধরে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছেন । আজ ৭ দিন ধরে আমার মেয়ে নিখোঁজ হয়ে আছেন৷ গত শনিবার (১২ নভেম্বর) আমার ভাতীয় ইমু নাম্বারে আমার মেয়ে রোকসানা একটি ভয়েজ পাঠিয়েছেন ২ লক্ষ টাকা পাঠিয়ে দাও আমাকে ছেড়ে দিবে না হয় ছাড়বে না ‘ মুক্তিপন দাবী করেছেন বলে জানিয়েছেন ভারতীয় নাগরিক রোকসানা বাবা ফারুক মিয়া । ২ লক্ষ টাকা দেওয়ার জন্য দানশী বস নামে ইমু আইডি থেকে ০১৯১৪৫৯৩১৮২ বিকাশ নাম্বার পাঠিয়েছেন হৃদয়। তিনি বাংলাদেশ স্থানীয় সরকার ও প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তার মেয়ে কে ফেরত দেওয়ার আকুতি জানিয়ে সাংবাদিকদের কাছে ১৩ নভেম্বর রাতে একটি ভিডিও বার্তা পাঠান।

বাংলাদেশী যুবক হৃদয় মা সাংবাদিকদের কে জানান , ভারতীয় নাগরিক এই তরুণী ও আমার নিকটতম আত্মীয় হয়। দীর্ঘ দিন ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। আমার ছেলে আমাদের না জানিয়ে ভারতীয় তরুণী পালিয়ে বিয়ে করেছেন। বর্তমানে মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ জানিয়েছেন আমার ছেলে নাকি অপহরণ করেছে। তারা মিথ্যা বলছে মেয়ে নিজের ইচ্ছায় আমার ছেলের কাছে ভারত থেকে বাংলাদেশ এসেছে। এখন তারা কোথায় আছে আমি জানি আমি খোজ পাইলে মেয়ে তাদের পরিবার কাছে দিয়ে দিবো।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে শশীদল ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান রিয়াদ সাংবাদিকদের জানান- প্রেমের টানে বাংলাদেশে আসেন ভারতীয় তরুণী রোকসানা ঘটনাটি সত্যতা স্বীকার করে। তিনি বলেন ভারতীয় ত্রিপুরা রহিমপুর গ্রামে প্রধান আক্তার হোসেন আমাকে বিষয়টি অবগত করেন। এই বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণে মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য চেষ্টা করছি।

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on tumblr
Tumblr
Share on telegram
Telegram

বিভাগের জনপ্রিয় সংবাদ

Leave a Comment

Your email address will not be published.

যায়যায়কাল এর সর্বশেষ সংবাদ